ডিজিটাল করোনা আপডেট সার্ভিস

বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এবং রবি বাংলাদেশে প্রথম ক্রাউড-সোর্সড এবং এআই ভিত্তিক ডিজিটাল করোনা আপডেট সার্ভিস নিয়ে এসেছে।

দয়া করে সেল্ফ টেস্ট করুন এবং সম্ভাব্য করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তি সম্পর্কে তথ্য প্রদান করে বাংলাদেশ সরকারকে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সহায়তা করুন। সরবরাহিত তথ্য আমাদের বিশ্লেষকদের বিভিন্ন ইনোভেটিভ ডেটা ভিজ্যুয়ালাইজেশন এক্সারসাইজ করতে ও ইনসাইট তৈরি করতে সহায়তা করবে যাতে করে সরকার অনায়াসে কাজ করে যেতে পারে। ডেটা অ্যানালিটিকস সল্যুশন ব্যবহার করে তৈরিকৃত প্রতিবেদনের উপর নির্ভর করে পরবর্তী পদক্ষেপ নির্ধারণের জন্য সরকার একটি নির্দিষ্ট অঞ্চলে করোনাভাইরাস ছড়ানোর সম্ভাবনা মূল্যায়ন করতে পারবে।

সাধারণ ঝুঁকিপূর্ণ (১-৯)

ঝুঁকিপূর্ণ (১০-৯৯)

অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ (১০০+)

লোকেশনফ্রিকুয়েন্সি
বাগেরহাট১০৩২
বান্দরবান৮৭১
বরগুনা১০০৮
বরিশাল৪৫৭১
ভোলা৯২৬
বগুড়া৯২৪০
ব্রাহ্মণবাড়িয়া২৭১৪
চাঁদপুর২৬০০
চাঁপাইনবাবগঞ্জ৮১১
চট্টগ্রাম২৮১১২
চুয়াডাঙ্গা১৬১৯
কক্সবাজার৫৬০৮
কুমিল্লা৮৮০৩
ঢাকা১৫৬৮০৮
দিনাজপুর৪২৯৫
ফরিদপুর৭৯৮১
ফেনী২১৮০
গাইবান্ধা১৪০৩
গাজীপুর৬৬৯৪
গোপালগঞ্জ২৯২৯
হবিগঞ্জ১৯৩৪
জামালপুর১৭৫৩
যশোর৪৫৪২
ঝালকাঠি৮০৪
ঝিনাইদহ২২৪৫
জয়পুরহাট১২৫০
খাগড়াছড়ি৭৭৩
খুলনা৭০২৭
কিশোরগঞ্জ৩৩৪১
কুড়িগ্রাম৯৮৭
কুষ্টিয়া৩৭০৭
লক্ষ্মীপুর২২৮৩
লালমনিরহাট৯৪২
মাদারীপুর১৫৯৯
মাগুরা১০৩২
মানিকগঞ্জ১৭১৩
মেহেরপুর৭৩৯
মৌলভীবাজার১৮৫৪
মুন্সিগঞ্জ৪২৫১
ময়মনসিংহ৪২৭৮
নওগাঁ১৪৯৯
নড়াইল১৫১১
নারায়ণগঞ্জ৮২৯০
নরসিংদী২৭০১
নাটোর১১৬২
নেত্রকোণা৮১৭
নীলফামারী১২৮০
নোয়াখালি৫৪৫৫
পাবনা১৫৪৪
পঞ্চগড়৭৫৩
পিরোজপুর১১৪৪
পটুয়াখালী১৬৬০
রাজবাড়ী৩৩৫২
রাজশাহী৫৬৮৭
রাঙ্গামাটি১০৯৮
রংপুর৩৮০৩
সাতক্ষীরা১১৪৭
শরীয়তপুর১৮৫৪
শেরপুর৫৪২
সিরাজগঞ্জ২৪৮৯
সুনামগঞ্জ২৪৯৫
সিলেট৮৮৩৭
টাঙ্গাইল৩৬০১
ঠাকুরগাঁও১৪৪২

লোকেশনফ্রিকুয়েন্সি
আব্দুল্লাহপুর৩৪
আদাবর৪১৮
আফতাবনগর৫৩
আগারগাঁও১৭২
আহমেদ নগর
আহমেদাবাগ২১
এয়ারপোর্ট৫৫
আমিনবাজার
আমলাপাড়া
আরামবাগ৩৮
আরমানিটোলা২৮
আসাদগেট১০
আশকোনা২২
আশুলিয়া২৭
আজিমপুর২৬৯
বাবু বাজার১৬৫
বাদামতলী
বাড্ডা৭০৩
বাগান বারী
বাহাদুর বাজার
বেইলি রোড৭২
বনানী৩১৬
বনশ্রী৩৩৫
বাংলামটর৩৬
বংশাল২১২
বানিয়ানগর
বারিধারা১৫১
বাসাবো৩৮৭
বসুন্ধরা৩৭৪
বেগম বাজার১১
বেগুনবাড়ী
বেড়িবাঁধ
বিজয়নগর১৮
বকসি বাজার২৮
বসিলা
বুয়েট এরিয়া
ক্যানটনমেন্ট২৪৭
সেন্ট্রাল রোড৩৭
চানখারপুল৭৬
চক বাজার১৫৪
দক্ষিণ খান১৯৩
দনিয়া৭২
ডেমরা২৫৩
ঢাকেশ্বরী
ঢালপুর২৯
ধানমন্ডী১৫৭৯
ধোলাইখাল
ধোলাই পার২৩
দয়াগঞ্জ
এলিফ্যান্ট রোড১২১
ইংলিশ রোড
ইস্কাটন১৮০
ফকিরাপুল২২
ফরিদাবাদ২৫
ফার্মগেট১৭৯
ফরাশগঞ্জ
ফুলবাড়িয়া৩৩
গাবতলী১৮
গাউসিয়া১৯
গেন্ডারিয়া৩০১
গোলাপবাগ৩৬
গোলারটেক
গনকতলী
গোপীবাগ৭১
গোড়ান১০৯
গ্রীন রোড২১৩
গুদারাঘাট
গুলবাগ
গুলিস্তান১৭
গুলশান৯৫১
হাজীপাড়া
হাতির ঝিল৫৪
হাতিরপুল৯৬
হাতখুলা
হাজারীবাগ২৬১
ইব্রাহিমপুর৩১
ইন্দিরা রোড১৬
ইসলাম বাগ১৫
ইসলামপুর৩২
জেল গেট
যাত্রাবাড়ী৯৪৩
জিগাতলা১৩২
জিঞ্জিরা
জুরাইন১০৭
কাফরুল৩৩৬
কাজলা
কাকরাইল৩৪৩
কলাবাগান৩৩৩
কল্যাণপুর১৭০
কমলাপুর৯৫
কামরাঙ্গীরচর৯৬
কাঁচপুর
কাটাশপুর
কাঁঠাল বাগান২৩৬
কাওরান বাজার৫২
কাজী পাড়া৩৫
খিলগাঁও৯২৭
খিলক্ষেত২৪৮
কচুক্ষেত২৩
কদমতলী৯৪
কোল্টা বাজার
কোনাপাড়া১০
করাতিতলা
কোসাইটুলী
কোতওয়ালি৭৫
কুড়িল৫০
কুতুবখালি
লালবাগ৫২৯
লালকুঠি১৫
লালমাটিয়া১৬৬
লক্ষ্মীবাজার৫৭
মাদারটেক২৯
মালিবাগ৩৬৬
মালিটোলা
মান্দা৭৫
মানিকদি
মানিকনগর১০১
মাটিকাটা
মাতুয়াইল৫১
মেরাদিয়া১৮
মেরুল
মিন্টু রোড১১
মির হাজির বাগ
মিরপুর৩৪৯৮
মিরপুর-১১৩৩
মিরপুর-১০৬১
মিরপুর-১১৭৭
মিরপুর-১২১১২
মিরপুর-১৩২৪
মিরপুর- ১৪৬৯
মিরপুর-২১০৫
মিরপুর-৬৩৫
মিরপুর-৭
মিটফোর্ড৭৮
মগবাজার৬০৬
মহাখালী৮০১
মোহাম্মাদপুর১৬৪১
মোহনপুর
মনিপুর৪০
মতিঝিল৩৮২
মৌচাক১২
মুগদা৯৪২
নাবিস্কো
নাখালপাড়া৯১
নন্দী পাড়া২০
নারিন্দা৮১
নবাবগঞ্জ
নবাবপুর১২
নয়া বাজার৭১
নয়া পল্টন১৪
নাজিরা বাজার১০
নীমতলী১২
নিউ মার্কেট১৪৭
নিকেতন৬১
নিকুঞ্জ৪৩
নীলক্ষেত২৭
পাকিপাড়া৩৮
পল্লবী৩২০
পল্টন৩১০
পান্থপথ৭০
পিরের বাগ২৫
পরীবাগ৫৭
পোস্তগোলা২১
পুরানা পল্টন৩৩
রাজাবাজার১৫২
রাজারবাগ২৫৮
রমনা৫৩৪
রামপুরা৯৫৬
রসুল বাগ
রসুলপুর
রায়েরবাগ৪২
রায়ের বাজার১১৬
রুপ গঞ্জ
রূপনগর৪৬
সবুজবাগ৩৩৩
সদরঘাট১৪
শাহজাদপুর৩৪
শাহজাহানপুর৩৩৮
শংকর
সায়েদাবাদ৩০
সায়েন্স ল্যাব
সেগুনবাগিচা১০৫
সেনপাড়া
শাহ আলি বাগ
শাহবাগ৩২৩
শাঁখারি বাজার৩৭
শ্যামপুর৫৯
শঙ্কর
শান্তিবাগ৬৮
শান্তিনগর২৫২
শ্যামলী২১০
শেখেরটেক৩২
শের-এ-বাংলা নগর৩০৪
শেওড়াপাড়া৩৬
শহীদ নগর১৭
শোয়ারি ঘাট
সিদ্ধেশ্বরী১০৩
সিপাহীবাগ
শনির আখড়া৭০
সুত্রাপুর১৬৯
স্বামীবাগ৬৪
তাল্লাবাগ
তালতলা২৫
তাতীবাজার২৭
তেজগাও৭৫৬
তেজকুনিপাড়া২৭
তেজতুরী বাজার১৯
টিকাটুলি৯০
টোলারবাগ৩১
টঙ্গী২৪
তুরাগ২২
উর্দূ রোড
উত্তরা১৮৩৯
ভাসানটেক২২
ভাটারা৩৩১
ওয়ারী৩৭১

COVID-19 প্রাইমারী সেল্ফ-টেস্ট

আপনি অন্য কারো পক্ষ থেকেও এই এসেস্‌মেন্টটি সম্পূর্ণ করতে পারবেন কিছু সাধারণ প্রশ্নের উত্তর দিয়ে

COVID-19 রিপোর্টিং

সম্ভাব্য করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের তথ্য শেয়ার করুন

অনলাইন ফার্মেসী

করোনাভাইরাস COVID-19 (সাধারণ জিজ্ঞাসা)

করোনাভাইরাস হল ভাইরাসের একটি বৃহত সমষ্টি যার ফলে প্রাণী অথবা মানুষ রোগাক্রান্ত হতে পারে। মানুষের মধ্যে বেশ কয়েক ধরণের করোনাভাইরাস সাধারণ শৈত্যপ্রবাহ থেকে মিডল ইস্ট রেসপিরেটরি সিন্ড্রোম (MERS) এবং সিভিয়ার একিউট রেসপিরেটরি সিন্ড্রোম (এসএআরএস) এর মতো আরও মারাত্মক রোগ থেকে শুরু করে শ্বাস প্রশ্বাসের সংক্রমণ ঘটায় বলে জানা যায়। সাম্প্রতিক সন্ধান পাওয়া করোনাভাইরাসে আক্রান্ত করোনভাইরাস রোগটি COVID-19 নামে পরিচিত।

COVID-19 ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যাক্তির কাছ থেকে অন্যান্যদের মধ্যে ভাইরাসটি ছড়াতে পারে। COVID-19 এ আক্রান্ত ব্যক্তি কাশ দিলে অথবা শ্বাস-প্রশ্বাস ছাড়লে তা অন্য ব্যক্তির নাক বা মুখের ছোট ছিদ্র দিয়ে প্রবেশ করে একজন থেকে আরেকজনে ছড়িয়ে পড়তে পারে। আক্রান্ত ব্যক্তির মুখ থেকে বেড়িয়ে আসা জীবাণুযুক্ত ফোঁটাগুলি ব্যক্তিটির চারপাশে বিভিন্ন বস্তু এবং মেঝেতে পড়ে থাকে। অন্য কেও যখন এসব বস্তু বা মেঝে যখন স্পর্শ করে এবং তাদের চোখ, নাক বা মুখ স্পর্শ করে তখন তারা COVID-19 দ্বারা আক্রান্ত হতে পারে। COVID-19 আক্রান্ত ব্যক্তি হাঁচি-কাশি দিলে তখন অন্য কোন ব্যক্তি যদি নিঃশ্বাসও গ্রহণ তাতেও সে ব্যক্তি COVID-19 এ আক্রান্ত হতে পারে। এজন্য অসুস্থ ব্যক্তির কাছ থেকে ১ মিটার (৩ ফুট) দূরে থাকা গুরুত্বপূর্ণ।

কোভিড-১৯ কীভাবে ছড়াচ্ছে সে সম্পর্কে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা রিসার্চ চালিয়ে যাচ্ছে এবং অবশ্যই WHO-এর পক্ষ থেকে প্রাপ্ত আপডেট জানিয়ে দেয়া হবে।

COVID-19 ভাইরাসটি কি বাতাসের মাধ্যমে ছড়াতে পারে?

আজ অবধি অধ্যয়ন থেকে বোঝা যায় যে COVID-19 ভাইরাসটি বাতাসের পরিবর্তে আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি-কাশি থেকে বেরিয়ে আসা ড্রপলেট থেকেই বেশি ছড়ায়। "COVID-19 কীভাবে ছড়িয়ে পড়ে?" এ বিষয়ে আগের উত্তরটি দেখুন।

COVID-19 এমন কোন ব্যক্তির কাছ থেকে ছড়াতে পারে যার মধ্যে ভাইরাসের কোন লক্ষণ নেই?

এই রোগটি ছড়িয়ে পড়ার প্রধান উপায় হ'ল হাঁচি-কাশি থেকে নির্গত ড্রপলেট। কোন লক্ষণ নেই এমন কারো কাছ থেকে COVID-19 ছড়ানোর ঝুঁকি খুব কম তবে, COVID-19 এ আক্রান্ত অনেক লোকই কেবল হালকা লক্ষণ অনুভব করেন। রোগের প্রাথমিক পর্যায়ে এটি বিশেষভাবে সত্য। অতএব এমন কারো কাছ থেকে COVID-19 ছড়ানো সম্ভব, উদাহরণস্বরূপ, যিনি কেবল হালকা কাশিতে আক্রান্ত কিন্তু কোনরকম অসুস্থতা বোধ করছেন না। কোভিড-১৯ কীভাবে ছড়াচ্ছে সে সম্পর্কে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা রিসার্চ চালিয়ে যাচ্ছে এবং অবশ্যই WHO-এর পক্ষ থেকে প্রাপ্ত আপডেট জানিয়ে দেয়া হবে।

COVID-19 এ আক্রান্ত ব্যক্তির মল থেকে কী ভাইরাসটি ছড়াতে পারে?

সংক্রামিত ব্যক্তির মল থেকে COVID-19 ছড়ানোর ঝুঁকি কম। প্রাথমিক ইনভেস্টিগেশনে দেখা গেছে ভাইরাসটি কিছু ক্ষেত্রে আক্রান্ত ব্যক্তির মলে উপস্থিত থাকতে পারে তবে ভাইরাসটি বিশাল পরিসরে ছড়িয়ে পড়ার ক্ষেত্রে এটি প্রধান বৈশিষ্ট্য নয়। কোভিড-১৯ কীভাবে ছড়াচ্ছে সে সম্পর্কে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা রিসার্চ চালিয়ে যাচ্ছে এবং অবশ্যই WHO-এর পক্ষ থেকে প্রাপ্ত আপডেট জানিয়ে দেয়া হবে। তবে এটি একটি ঝুঁকি, তাই, বাথরুম ব্যবহার করার পরে এবং খাওয়ার আগে নিয়মিত হাত পরিষ্কার করে নিন।

COVID-19 এর সাধারণ লক্ষণগুলি হল জ্বর, ক্লান্তি এবং শুকনো কাশি। কিছু রোগীর সারা শরীরে ব্যথা, শ্বাসকষ্ট, সর্দি, গলা ব্যথা বা ডায়রিয়া হতে পারে। এই লক্ষণগুলি সাধারণত হালকাভাবে শুরু হয় এবং ধীরে ধীরে তীব্র হতে থাকে। কিছু লোক সংক্রামিত হয় তবে তাদের মধ্যে রোগের কোন লক্ষণ দেখতে পাওয়া যায় না এবং এরা অসুস্থ বোধ করে না। বেশিরভাগ লোক (প্রায় ৮০%) বিশেষ চিকিত্সার প্রয়োজন ছাড়াই রোগ থেকে সেরে ওঠে। COVID-19 আক্রান্ত প্রতি ৬ জনের মধ্যে ১ জন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে এবং শ্বাস নিতে অসুবিধা বোধ করে। বয়স্ক ব্যক্তি এবং উচ্চ রক্তচাপ, হার্টের সমস্যা বা ডায়াবেটিসের মতো রোগীদের গুরুতর অসুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। জ্বর, কাশি এবং শ্বাস নিতে সমস্যা হয় এমন ব্যক্তিদের চিকিত্সকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

COVID-19 প্রাদুর্ভাবের সর্বশেষ তথ্য সম্পর্কে সচেতন থাকতে, WHO-এর ওয়েবসাইটে ভিজিট করুন এবং আপনার জাতীয় এবং স্থানীয় জনস্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের সহায়তা নিন। বিশ্বজুড়ে অনেক দেশ COVID-19 এর সম্মুখীন হয়েছে এবং বেশিরভাগই এর প্রাদুর্ভাব দেখেছে। চীন এবং অন্যান্য কয়েকটি দেশ করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ধীরগতিতে নিয়ে আসতে বা বন্ধ করতে সফল হয়েছে। যাইহোক, অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে করোনাভাইরাস সম্পর্কিত সর্বশেষ খবর নিয়মিত চেক করুন।

আপনি কিছু সাধারণ সতর্কতা অবলম্বন করে সংক্রামিত হওয়া বা COVID-19 ছড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা হ্রাস করতে পারেন:

অ্যালকোহল যুক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করে আপনার হাত ঘষে ভালমতো নিয়মিত পরিষ্কার করুন বা সাবান ও পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

কেন? অ্যালকোহল যুক্ত হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করে ভালমতো হাত পরিষ্কার করলে হাতে থাকা ভাইরাস মরে যায়।

হাঁচি-কাশিতে আক্রান্ত এমন ব্যক্তির কাছ থেকে কমপক্ষে ১ মিটার (৩ ফুট) দূরত্ব বজায় রাখুন।

কেন? যখন কেও হাঁচি-কাশি দেয় তার নাক-মুখ থেকে লিকুইড ড্রপলেট নির্গত হয়। আপনি যদি সে ব্যক্তির খুব কাছাকাছি থাকেন তবে আপনার নিঃশ্বাসের মাধ্যমে আক্রান্ত ব্যক্তির লিকুইড ড্রপলেট আপনার মধ্যে প্রবেশ করতে পারে। যদি উক্ত ব্যক্তি COVID-19 এ আক্রান্ত হয়ে থাকে তবে তা আপনার মধ্যেও ছড়িয়ে পড়বে।

চোখ, নাক ও মুখ স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন।

কেন? হাত দিয়ে অনেক ধরণের বস্তু স্পর্শ করা হয় যা ভাইরাস যুক্ত হতে পারে। এসব ভাইরাস হাত থেকে নাকে-মুখে স্পর্শ করার মধ্য দিয়ে আপনার ভেতরে প্রবেশ করতে পারে এবং আপনাকে অসুস্থ করে ফেলতে পারে।

আপনি এবং আপনার চারপাশের লোকেরা রেসপিরেটরি হাইজিন মেনে চলেন এ ব্যাপারে নিশ্চিত হোন। এর মানে আপনি যখন কাশি বা হাঁচি দেন তখন আপনার বাঁকানো কনুই বা টিস্যু দিয়ে আপনার মুখ এবং নাক ঢেকে রাখার বিষয়ে আপনি সচেতন এবং আপনি তা মেনে চলেন। এরপর দ্রুত আপনার ব্যবহৃত টিস্যুটি ফেলে দিন।

কেন? ড্রপলেট ভাইরাস ছড়ায়। শ্বাস প্রশ্বাস জনিত হাইজিন মেনে চলে আপনি আপনার আশেপাশের লোকজনকে বিভিন্ন রকমের ভাইরাস যেমন ঠাণ্ডা, ফ্লু এবং COVID-19 থেকে রক্ষা করতে পারেন।

অসুস্থ বোধ করলে বাসায় থাকুন। আপনার যদি জ্বর, কাশি এবং শ্বাস প্রশ্বাসে সমস্যা হয় তবে ডাক্তারের সহায়তা নিন এবং আপনার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে আগেই কল করে অবগত করুন।

কেন? জাতীয় ও স্থানীয় কর্তৃপক্ষের কাছে আপনার অঞ্চলের পরিস্থিতি সম্পর্কে সর্বাধিক সময়োপযোগী তথ্য থাকবে। আপনার স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহকারীকে আগে থেকে কল করে আপনার সম্পর্কে জানিয়ে দিলে তারা দ্রুত আপনার সঠিক স্বাস্থ্য সুবিধার বিষয়টি নিশ্চিত করতে সমর্থ হবে। এটি একদিকে যেমন আপনাকে রক্ষা করবে একইসাথে ভাইরাস এবং অন্যান্য সংক্রমণের বিস্তার রোধ করতে সহায়তা করবে।

COVID-19 সম্পর্কিত সকল লেটেস্ট তথ্য সম্পর্কে সচেতন থাকুন বিশেষ করে যে শহরে বা এলাকায় দ্রুত ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ছে তারা। সম্ভব হলে ঘরের বাইরে যাতায়াত বন্ধ করে দিন - বিশেষ করে বয়স্ক মানুষেরা যাদের ডায়াবেটিস, হার্ট অথবা লাঞ্জের রোগ রয়েছে।

কেন? এসব এলাকায় আপনার COVID-19 হওয়ার সবচেয়ে বেশি সম্ভাবনা রয়েছে।

যেসব ব্যক্তি COVID-19 ছড়িয়ে পড়ছে এমন এলাকায় সম্প্রতি বা গত ১৪ দিন পরিদর্শন করেছেন এমন ব্যক্তিদের সুরক্ষা ব্যবস্থা

উপরে বর্ণিত গাইডেন্স অনুসরণ করুন (প্রত্যেকের জন্য সুরক্ষা ব্যবস্থা)

আপনি যদি অসুস্থ বোধ করতে শুরু করেন, এমনকি হালকা সিন্ড্রোম যেমন মাথাব্যথা, অল্প জ্বর (৩৭.৩ সেন্টিগ্রেড বা তার বেশি) এবং সর্দি দেখা দেয় তবে সেরে না ওঠা পর্যন্ত নিজেকে ঘরের মধ্যে জনবিচ্ছিন্ন অবস্থায় রাখুন। প্রয়োজন হলে কারো সহায়তা নিন বাইরে থেকে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনে আনার ক্ষেত্রে অথবা বাইরে যদি যেতেই হয় মাস্ক ব্যবহার করুন এবং অন্যান্যদের আক্রান্ত করা থেকে বিরত থাকুন।

কেন? অন্য কারো সাথে যোগাযোগ এড়িয়ে চললে COVID-19 ছড়ানো থেকে এবং অন্য লোকদের ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া থেকে আরো ভালভাবে রক্ষা করা সম্ভব।

আপনি যদি জ্বর, কাশ এবং শ্বাস প্রশ্বাস জনিত সমস্যায় ভুগে থাকেন তবে দ্রুত ডাক্তারের সহায়তা নিন কেননা এসব লক্ষণ ভাইরাসে আক্রান্ত হবার ফলেও আপনার মধ্যে দেখা দিতে পারে। আগেই কল করে আপনার স্বাস্থ্যসেবককে জানিয়ে দিন আপনি সাম্প্রতিক কোথায় ভ্রমন করেছেন বা কাদের সাথে যোগাযোগ করেছেন সে সম্পর্কে।

কেন? আপনার স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহকারীকে আগে থেকে কল করে আপনার সম্পর্কে জানিয়ে দিলে তারা দ্রুত আপনার সঠিক স্বাস্থ্য সুবিধার বিষয়টি নিশ্চিত করতে সমর্থ হবে। এটি একদিকে যেমন আপনাকে রক্ষা করবে একইসাথে ভাইরাস এবং অন্যান্য সংক্রমণের বিস্তার রোধ করতে সহায়তা করবে।



স্পেশাল এসিস্টেন্স প্যাক

ইন্টারনেট প্যাকমূল্যভলিউমমিনিটমেয়াদ

ইনস্ট্যান্ট ইনফরমেশন প্যাক৬৩ টাকা২ জিবি
৩ দিনকিনুন
সোশ্যাল কানেক্ট প্যাক৩৪ টাকা৭০০ এমবি
৩০ দিনকিনুন
ওয়ার্ক ফ্রম হোম প্যাক৯৯৮ টাকা৬০ জিবি১৪০০৩০ দিনকিনুন


  • এই সার্ভিসটি এখনও ডেভলপমেন্ট স্টেজে আছে। সার্ভিসটির কার্যকারিতা এর বিগ ডাটা প্ল্যাটফর্মে ক্রাউডসোর্সিং-এর মাধ্যমে সংগ্রহীত তথ্যের পরিমাণ এবং গুনগত মানের ভিত্তিতে বৃদ্ধি পাবে।
  • ইন্টারনেট ব্যালেন্স চেক করতে ডায়াল করুন *৩#, মিনিট চেক করতে ডায়াল করুন *২২২*৮#, SMS চেক করতে ডায়াল করুন *২২২*১২#।
  • প্যাকের ভলিউম বা মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে আপনাকে Pay-As-You-Go রেটে ১ টাকা (+ট্যাক্স) থেকে ৫ টাকা পর্যন্ত Pay-per-use অনুসারে চার্জ করা হবে।
  • ভ্যাট, সম্পূরক শুল্ক ও সারচার্জ অন্তর্ভুক্ত।

জরুরী যোগাযোগের জন্য

১৬২৬৩ (কর মুক্ত)